Case study of Mary Bell বাংলায় | 2024

Mary Bell
Mary Bell

1957 সালের 26 শে মে, নিউ ক্যাসেল , ইংল্যান্ডে জন্মগ্রহণ করে Mary Bell , তার মা betty মাত্র 17 বছর বয়সে মা হন । betty এই বাচ্চাকে জন্ম থেকেই ভালোবাসতো না এবং প্রচুর অবহেলা করতো। mary এটাও জানতো না যে তার আসল বাবা কে , কারণ তার মা একজন সেক্স ওয়ার্কার ছিলেন । প্রায় কয়েক বছর পর Betty একজনকে বিয়ে করেন , যে একজন armed robber, alcoholic ক্রিমিনাল ছিলো। এ থেকে বোঝা যায় Mary র upbringing একদম ই ঠিকভাবে হচ্ছিল না । Mary, Betty খুব ই নোংরা জায়গায় থাকতো , আর ওইসময় ওখানে প্রচুর ক্রাইম ও হতো যেমন:- ড্রাগ এক্টিভিটি , সেক্স স্ক্যান্ডাল ইত্যাদি । Mary Bell র বয়স যখন মাত্র 4 , তখন betty র এক pervert client তাকে এক্সট্রা পে করে যাতে Betty তার মেয়ে mary কে sexually abuse করে , হ্যাঁ একদম ই ঠিক শুনছেন , Betty এই অফার টি ফেলতে পারেনি এবং client র কথা মতো সে Mary র সাথে ঠিক তাই তাই করে । Mary একদম traumatized হয়ে গিয়েছিলো, একদিন mary র একটি দুঃস্বপ্নে ঘুম ভেঙে যায় এবং দেখে তার nightfall হয়েছে , Betty এটা দেখে রেগে গায়ে mary র মুখে বিছানার চাঁদর ঘষে দেয়। পরবর্তী কালে betty অনেকবার mary কে খুন করার চেষ্টাও করে। Betty শুধু চেয়েছিল mary কে তার জীবন থেকে সরিয়ে দিতে।

Mary Bell এর ছোটবেলার জীবন :

একদিন betty mary কে নিয়ে adoption clinic এ গিয়েছিলো , তখন এক মহিলা ঘর থেকে বেরিয়ে এসে কাঁদছিলো কারণ ডাক্তার বলেছে তিনি কোনো বাচ্চাকে adopt করতে পারবেন না , betty এই সুযোগে mary কে ওই মহিলাটির কাছে গিয়ে বলে আপনি একে দত্তক নিতে পারেন , এটা বলে betty ওখান থেকে পালিয়ে যায় , কিন্তু betty র বোম isa সেই মহিলাটিকে follow করেন , এবং সব কথা এসে তার মা কে বলেন , betty র মা betty কে বলেন mary কে 2 ঘন্টার মধ্যে নিয়ে আনতে না পারলে এ বাড়ির দরজা তোমার জন্য সারাজীবনের মতো বন্ধ । সে mary কে ফেরত নিয়ে আসে । ওই মহিলাটি mary কে ভালোবেসে ফেলেছিলো এবং তাকে একটি জমাও কিনে দিয়েছিলো। হয়তো সেই মহিলার সাথে থাকলে mary র জীবন সুন্দর ও স্বাভাবিক হতো কিন্তু নিয়তি তে অন্য কিছুই লেখা ছিলো । বড়ো হয়ে যাওয়ার পর mary খুবই introvert টাইপের ছিলো , সেই জন্য স্কুলে তার কোনো বন্ধুও ছিলোনা। Mary কে তার স্কুলে সবাই bullie করতো । কিছুদিন পর mary এর এক বন্ধু হয় যার নাম ছিলো Norma Bell, দুজনের সেম সার্নেম হলেও ওরা রিলেটিভ ছিলোনা । Mary Bell প্রায় ই norma র বাড়িতে গিয়ে খেলতো । 11may 1968 সাল , mary র তখন বয়স 10 বছর , Norma র বয়স 12 । তারা একটি 3 বছরের বাচ্ছা ছেলে John কে নিয়ে যায় তাকে মিষ্টি খাওয়াবে বলে , আধ ঘন্টা পর Norma আর Mary কে বাকিরা রক্ত মাখা অবস্থায় দেখে , তখন তারা বলে john পড়ে গিয়েছিলো , পুলিশ আসার পর Mary স্বীকার করে যে সে john কে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দিয়েছিলো। 25 শে মে , 1968 সালে martin brown যার বয়স ছিলো মাত্র 4 যে তখন Saint Margaret’s road এ তার বাবা মা এবং বোনের সাথে থাকতো । সে খুব ই শান্ত এবং ভালো ছেলে ছিলো । ওই দিন সে বাড়ির বাইরে বাচ্চাদের সাথে খেলছিল , সেখানে অনেক Abandoned house ছিলো , যা অনেক বছর ধরেই ওভাবেই ছিলো । কিছু সময় পর তিনজন বাচ্চা ওই abandoned house এ খেলতে গিয়ে দেখে সেখানে martin brown মেঝেতে পড়ে আছে আর মাথাতে রক্ত , পরে সেখানে পুলিশ আসে ইনভেস্টিগেট করতে। কিন্তু পুলিশ বুঝতে পারছিলনা যে এটি মার্ডার নাকি accident। 26 শে মে র দিন mary তার 11 তম জন্মবার্ষিকী পালন করছিল Norma র বাড়িতে । তখন উপরে এসে norma র dad দেখে mary norma র ছোট বোনের গলা টিপছে , norma র dad mary bell কে আটকাতে যায় তখন mary চালাকি করে বলে যে তারা শুধু খেলছিল। 27 শে মে scotswood র এক nursery তে mary আর norma গিয়ে সব ভাঙচুর করে , পুলিশ এসে দেখে সেখানে কিছুই মিসিং ছিলনা । পরে তারা ওখান থেকে কিছু চিঠি পায় যেখানে লেখা ছিলো -হ্যাঁ আমরাই Martin কে মেরেছি তোমরা যা ইচ্ছা করে নাও । এই সমস্ত নোটে অনেক গ্রামাটিক্যাল মিসটেক , স error ছিলো , আর পুলিশের বুঝতে দেরি হয়নি যে এটা এক বাচ্চার হাতের লেখা। 

India এর ছাত্ররা India ছেড়ে বাইরে কেন চলে যায়? | 2023

পুলিশ এর তদন্ত :

কিছুদিন পর , mary আর norma মার্টিন এর বাড়িতে যায় , আর মার্টিন এর মা কে জিজ্ঞেস করে তুমি কি মার্টিন কে মিস করছো , তখন তার মা বলে মার্টিন আর এই দুনিয়ায় নেই , তখন mary হেঁসে বলে আমি জানি এটা , আর আমি তার কফিন দেখতে এসছি। এটা শুনে তার মা দরজা দিয়ে দেয়। প্রায় 9 সপ্তাহ পর 31 শে জুলাই , 3 বছর বয়সী Brian Howie কে শেষবার দেখা গিয়েছিলো তার কুকুরের সাথে খেলতে , যখন রাত হয় তার বাবা মা তাকে খুঁজতে বেরোয়। কিন্তু সে ফেরত আসছিলনা , এলাকার বাকিরা এটা শুনে খুব ই দুঃখপ্রকাশ করে তখন Norma আর Mary bell হাসছিল , এবং আনন্দ করছিল । ঠিক রাত 11:10 এ তারা 3 বছরের brian কে খুঁজে পায় বাড়ির কিছু দূরেই। Brian এর গলাতে নখের দাগ ছিলো , এটা পরিষ্কার ছিলো যে মারার আগে তাকে টর্চার করা হয় । এই কেসের ইন চার্জ ছিলেন ডিটেক্টিভ জেমস ডবসন , যে কিছু দিন আগের হওয়া মার্টিন ব্রাউনের সাথে এই কেসের সিমিলারিটি খুঁজে পায় । দুটো খুনেই মারার পর body তে একটি ‘M’ অক্ষর কার্ভড করা হয়ে ছিলো । পোস্ট মর্টেম এর পর জানা যায় দুই বডি তেই আঘাতের চাপ খুব ই অল্প ছিলো ,যদি কোনো adult এই খুন করতো তাহলে আরো বেশি প্রেসার দেওয়া হতো । পুলিশ এটা দেখে এলাকায় হাই এলার্ট জানিয়ে দেয় , আর 1000 টি বাড়িতে গিয়ে প্রায় 1200 বাচ্চার সাথে সার্ভে করে যার মধ্যে Mary আর Norma ও ছিলো । এবং তাদের আন ক্লিয়ার , সারপ্রাইস বিহেভিওর দেখে পুলিশ তাদের সাথে বহুবার সার্ভে করে । ডবসন শুরুতেই সন্দেহ করে নর্মা আর ম্যারি কে । এরকম চলতে চলতে 4ই আগস্ট , ডবসন নর্মার চতুর্থবার ইন্টারভিউ নেয় , সেইদিন নর্মা চাপে এসে সব সত্যি কথা বলে দেয় । norma বলে সব গুলো খুন ম্যারি করতো আর আমি শুধু দেখতাম আর ম্যারি বলেছিল এসব কাউকে না বলতে । পুলিশ ফাইনালি রাত 12:15 এ Mary Bell এর বাড়ি যায় , Mary সব কথা শুনে Norma কেও মেরে ফেলার হুমকি দেয় । পুলিশ তাদের দুজনকেই গ্রেফতার করে ।  

পরবর্তী জীবন :

পরবর্তী কালে জেল থেকে বের হওয়ার পর ম্যারি স্বাভাবিক জীবন কাটায় এবং 2001 সালে তার এক নাতনী ও হয় । তো এই ছিল ম্যারি র কাহিনী , এটা থেকে বোঝা যায় কারোর জীবনে অনেক ট্রাউমাটিজড ঘটনা ঘটলে পরবর্তীতে তার ওপর ও সেটার প্রভাব পড়ে , আর যার থেকে সে ও অনেক ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে পারে । 

তো আজকের পর্যন্ত এই টুকু , ব্লগটি ভালো লাগলে লাইক অবশ্যই করবেন , আর ওয়েবসাইট এ নতুন আসলে কমেন্ট করতে ভুলবেননা । তো আজকের মতো এইটুকুই , সবাই ভালো থাকবেন , সুস্থ থাকবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here